Header Ads

হাতের নাগালে পড়লেও স্পর্শ করা যাবে না তিয়াংগং-১

চীনের মহাকাশ স্টেশন তিয়াংগং-১ নিয়ন্ত্রণহীন অবস্থায় পৃথিবীতে আছড়ে পড়তে যাচ্ছে। বিজ্ঞানীরা বলছেন, আগামী শুক্রবার থেকে মঙ্গলবারের মধ্যে যেকোনো সময় এটি পৃথিবীপৃষ্ঠে আঘাত করতে পারে। তবে এর সময়-স্থান সুনির্দিষ্ট করে বলা যাচ্ছে না। এ অবস্থায় এটি মানুষের বাড়িঘরে বা আশপাশে পড়ার আশঙ্কাও উড়িয়ে দিচ্ছেন না গবেষকরা।
গবেষকরা সতর্ক করেছেন, এতে অত্যন্ত বিপজ্জনক রেডিয়েশনযুক্ত পদার্থ থাকতে পারে। আর এ কারণে মহাকাশ স্টেশনটি বা এর অংশবিশেষ যদি আপনার পাশেও পড়ে তার পরেও তা ধরা উচিত নয়। এমনকি এ থেকে নির্গত ধোঁয়া থেকেও দূরে থাকবেন। নাহলে এর সংস্পর্শে মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে মানবদেহের। তাই পাওয়া গেলে অবশ্যই আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীকে খবর দিতে হবে।
এখনো সেই মহাকাশযানটি কোথায় পড়বে, সে বিষয়ে কোনো ধারণা করতে পারছেন না গবেষকরা। কারণ এটির ওপর চীনের মহাকাশ গবেষণা কর্তৃপক্ষের নিয়ন্ত্রণ নেই।
বিষুবরেখা বরাবর ৪৩ ডিগ্রি উত্তর ও দক্ষিণের মধ্যে অবস্থিত যেকোনো জায়গায় তিয়াংগং-১ আছড়ে পড়তে পারে এটি। নিউ ইয়র্ক, বার্সেলোনা, পেইচিং, শিকাগো, ইস্তাম্বুল, রোম বা টরন্টো—পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের ৩৮টি শহরের যেকোনো একটিতেও এটি পড়তে পারে। সময়টা হতে পারে আগামী শুক্রবার থেকে মঙ্গলবারের মধ্যে কোনো একসময়।
পৃথিবী এ মহাকাশ স্টেশনের তুলনায় এত বড় যে, এর দ্বারা মানুষের আঘাত পাওয়ার আশঙ্কা অত্যন্ত কম।  এ পর্যন্ত মাত্র একজন মানুষই মহাকাশ থেকে পড়া এ ধরনের আবর্জনায় সামান্য আহত হয়েছিলেন। ১৯৯৬ সালের সে ঘটনায় লটি উইলিয়ামস নামে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ওকলাহোমা রাজ্যের এক নারী আহত হয়েছিলেন।
তিয়াংগং-১ পুরোপুরি ধ্বংস হওয়ার আগে ভূপৃষ্ঠে পড়লে এটি থেকে হাইড্রাজিন নামে একটি বিষাক্ত তৈলাক্ত তরল নির্গত হতে পারে, যা মানুষের চোখ-নাক-গলায় প্রদাহ, মাথাঘোরা থেকে শুরু করে ক্যান্সারের কারণ পর্যন্ত হতে পারে। তাই এটি না ধরার জন্য আগেভাগেই সতর্ক করছেন গবেষকরা।
মহাকাশ থেকে পড়ার সময় পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের সঙ্গে সংঘর্ষে অনেকটাই পুড়ে ছাই হয়ে যাবে এটি। তবে ১০০ কেজির ধ্বংসাবশেষ আকাশ থেকে মাটিতে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

No comments

Powered by Blogger.