Header Ads

মেকআপ জটিলতায় জেনে রাখুন

মায়াবী চোখে কাজলের ছোঁয়া ওই চোখকে করে তোলে আরও মায়াবী। শুধু কি চোখ। ঠোঁটের রহস্য বাড়িয়ে তোলা লিপস্টিক, নিখুঁত বাঁকা ভ্রু আর কপালের কেন্দ্রে টিপ। এ সবই নারীর সৌন্দর্যে যোগ করে বাড়তি মাত্রা। তাই নারীর সৌন্দর্য চর্চায় মেকাপ অনেকটা অপরিহার্য। আবার যথাযথ নিয়ম অনুসরণ না করে, ব্যবহৃত পণ্যের মান নিশ্চিত না হয়ে মেকাপের ব্যবহার ত্বকে নানা জটিলতা তৈরি করতে পারে। এই জটিলতা এড়াতে মেকাপের পূর্বে কিছু বিষয় জেনে রাখা উচিত। লিখেছেন- রুবেল রেহান। বিশ্ব স্বীকৃত একজন মেকআপ বিশেষজ্ঞের মতে, ত্বকের যতেœ মহিলারা বহুমূল্য মেকাপ সামগ্রী ব্যবহার করে থাকে। আর এটা তারা বিভিন্ন কসমেটিকের দোকান থেকেই সংগ্রহ করে। কিন্তু এটা তাদের কেনা উচিত ওষুধের দোকান থেকে। নারীরা চোখের পাতায় শ্যাডো করে কিংবা লিপলাইন ব্যবহার করে এটা ভাল। তারা তাদের পছন্দকে প্রাধান্য দিচ্ছে। কিন্তু এটা ঠিক নয় যে, একটা ভিত্তি তৈরি না করে কিংবা পাউডার না বসিয়েই তারা আইলাইনার, লিপস্টিক, মাসকারা ব্যবহার করছে। পাউডার অথবা ভিত্তি আমাদের দেশে একটা খারাপ বা খটখটে শব্দে পরিণত হয়েছে। বিষয়টি অনেকেই মানতে চান না অথবা এর সঙ্গে পরিচিত নন। এটা ধরে নেয়া যায় যে, প্রায় সব নারীই চোখে শ্যাডো করতে চায়। আর এজন্য তারা যখন শপিং করতে যায়, তখন ওখানকার সেলসম্যানরা তাদের হালকা রঙের জিনিসের প্রস্তাব দেয়, যার সম্পর্কে ওখানকার স্টাফরাও ধারণা রাখে না। একজন মেকআপ বিশেষজ্ঞ এ রকম একটা ঘটনা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করেছিলেন। আর তা অনেকটা এ রকম- ‘একবার আমার সঙ্গে এমনটা হলো যে, কসমেটিক সামগ্রীর দোকানে এক স্টাফ আমাকে এমন এক ফ্যাকাশে রঙের প্রস্তাব করেছিল যা ব্যবহারে কল্পনায় নিজেকে ভূত দেখতে পাচ্ছিলাম। আমি নিশ্চিত বেশিরভাগ মহিলা মনে করে এটা কোন বড় বিষয় নয়।’ চোখের হালকা শেড। যা একজন নারীর ত্বকের সমস্ত খুতগুলো ধরিয়ে দিতে পারে। এবং এটা তাদের মধ্যে একটা খারাপ দিক বহন করে। যা তারা এড়িয়ে যেতে পারে না হয়ত। এছাড়া আপনি যখন ত্বকে কোন গাঢ় শেড নেবেন এটাও দেখতে হয়ত খারাপ লাগবে না। কিন্তু আপনি যখন ফ্যাকাশে লুক নেবেন ত্বকে তখন অন্য কিছুই আর লুকাতে পারবেন না। অনেকটা সাদা জিন্স পরলে যেমন আপনার চেহারা দেখা যায়। বাস্তব ম্যাচিং বলতে এখানে আপনাকে নিজেকেই নিজের জন্য মেকাপ নির্বাচন করতে হবে। অনেকগুলো শ্যাডো থেকে নির্বাচন করতে হবে সঠিক শ্যাডোটি। আর এটা অন্য কেউ কখনই বুঝবে না যে কোনটা আসলে আপনার জন্য সঠিক। এর জন্য আপনি আপনার কপালের পাশে সামান্য একটা শ্যাডো করে নিতে পারেন। যদি দেখেন সেটা আপনার ত্বকের জন্য উপযুক্ত বা মিলে যায়, তবে তো আপনি পেয়ে গেলেন আপনার জন্য উপযুক্ত শেড। আর এক্ষেত্রে মেকাপ বিষেষজ্ঞরা দৃঢ়ভাবে প্রস্তাব করে- নিজের শ্যাডো নিজে খুঁজে বের করতে। কোন সেলস্গার্ল এর পরামর্শে নয়। যে কিনা আপনাকে একটা ফ্যাকাশে অথবা খড়খড়ে রঙের প্রস্তাব দেবে। তো কেন আপনি ভিত্তির বিষয়ে উদ্যোগী হবেন। এটা অবাক করার মতোই, কিভাবে একটা সুন্দর মেকআপ মহিলারা কোন রকম বেস বা ভিত্তি ছাড়াই করে। তার মানে এই নয় যে, আপনার ত্বকের প্রতিটি ইঞ্চি কাভার করে দিতে হবে বা ভিত্তি তৈরি করতে হবে। আপনাকে কেবল স্পটটা চিহ্নিত করতে হবে। যেখানে আপনি মনে করেন সংশোধন করা দরকার। যদি ত্বক সুন্দর ও মসৃণ হয় তবে আপনার ত্বক উজ্জ্বল করার জন্য একটা পাউডারই যথেষ্ট। সবচেয়ে বড় ভুলটা নারীরা তখনই করে যখন তারা তাদের মুখের কোন অসুন্দর কিছু ঢাকতে পুরো মুখে ওয়াশ করে। আর তাতে করে তাদের ত্বকের প্রয়োজনী ময়শ্চারই শুকিয়ে যায়। এটা কেবল আপনাকে নির্দিষ্ট স্পটে ব্যবহার করতে হবে। আর সেজন্য ত্বকের চারটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান রয়েছে। যেখানে সত্যিই আপনাকে স্পর্শ করতে হবে- কপালে, চোখের ভেতরের কোণে, নাকের চারপাশে এবং মুখের কোণে।
তো এবার প্রয়োগ করুন এবং বেড়িয়ে যান। আর সমস্ত মুখে ভিত্তি ব্যবহার করবেন না। তাই মুখের কেন্দ্রের দিকে নজর দিন, যেখানে এটা বেশি প্রয়োজন। তারপর একটি ব্রাশের সাহায্যে মুখ এবং ঘাড়ে ফেসপাউডার ব্যবহার করতে পারেন। তাই একটি ভাল মানের ফেসপাউডার মুখের ছোট ছোট ক্ষত কিংবা দাগগুলোকে ঢেকে রাখবে।

No comments

Powered by Blogger.