ইন্ডাস্ট্রির খারাপ অবস্থার কারণেই এতদিন গান করিনি’

মঞ্চমাতানো সংগীতশিল্পী আতিক হাসান অডিও অ্যালবামেও বেশ সফল। ২০০৮ সাল পর্যন্ত নিয়মিতই অ্যালবাম করে সাফল্য পান তিনি। কিন্তু তারপর বিভিন্ন কারণে অডিও ইন্ডাস্ট্রির অবস্থা খারাপ হওয়ার ফলে গানের সংখ্যা কমিয়ে দেন। এদিকে চার বছরের বিরতি শেষে ২০১৭ সালে একক অ্যালবাম প্রকাশ করেন এ শিল্পী। অবশ্য সেই চার বছরে নতুন গান না করলেও টিভি লাইভ এবং স্টেজ শো নিয়ে বেশ ব্যস্ত সময় পার করেছেন তিনি। বর্তমানে আতিক হাসান স্টেজ শো, টিভি লাইভ ও অনুষ্ঠান নিয়ে দারুণ ব্যস্ত।সব মিলিয়ে কেমন আছেন? আতিক হাসান বলেন, অনেক ভালো আছি আল্লাহুর অশেষ রহমতে। এখনও গান নিয়েই সময় চলে যাচ্ছে। বর্তমান ব্যস্ততা কি নিয়ে? আতিক হাসান বলেন, এখনতো শোয়ের মৌসুম। প্রচুর ব্যস্ততা যাচ্ছে। প্রায় প্রতিদিনই শো নিয়ে ব্যস্ত থাকতে হয়। দেশের বিভিন্ন স্থানে শো হচ্ছে। এই ব্যস্ততা চলবে টানা আরও কয়েক মাস। শো  করতে কেমন লাগে? আতিক হাসান বলেন, প্রকৃত শিল্পীদের মূল জায়গাতো স্টেজ। সেখানে সরাসরি শ্রোতাদের সামনে নিজেকে প্রমাণ করতে হয়। তাই এটা একটা চ্যালেঞ্জও বটে। আমি সব সময় নিজেকে শ্রোতাদের শিল্পী মনে করি। তাই তাদের সরাসরি গান শোনাতেও ভালো লাগে। প্রতিবার স্টেজে উঠলে অন্যরকম উদ্যম ভর করে। গত বছরতো নতুন একক অ্যালবাম প্রকাশ করেছেন তিন গান নিয়ে। অ্যালবামের সাড়া কেমন পেয়েছেন? শিল্পী বলেন, ‘কন্যা’ অ্যালবামটি করেছি গত বছর। মোটামুটি ভালো সাড়া পেয়েছি সেখান থেকে। আমার ভক্তরা আমাকে প্রতিনিয়ত গানগুলোর ভালো লাগার কথা এখনও জানাচ্ছেন। মধ্যে চার বছরের বিরতি নিয়েছেন। এখন কি নিয়মিত পাওয়া যাবে আপনাকে? আতিক হাসান উত্তরে বলেন, ইন্ডাস্ট্রির খারাপ অবস্থার কারণেই এতদিন গান করিনি। সাউন্ডটেক থেকে আমার বেশিরভাগ অ্যালবাম প্রকাশ হয়েছে। পরবর্তীতে দেখলাম প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ হয়ে গেছে। অন্যান্য কোম্পানিও তেমন একটা অ্যালবাম প্রকাশ করেনি। নিজে বিনিয়োগ করে অ্যালবাম করতে পারতাম। কিন্তু তাতে আমি রাজী নই। কারণ আমি শিল্পী। ব্যবসা করতে পারবো না। তবে এখন অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে। ডিজিটালি গান প্রকাশ হচ্ছে। এখন থেকে নিয়মিত গান করবো। আপনি যখন গান শুরু করেছিলেন তখন ভিডিওর চল তেমন একটা ছিলো না। অডিওতেই আপনার গানগুলো শ্রোতাপ্রিয়তা পেয়েছে। এখন ভিডিওর যুগ। ভিডিও যেন এখন গানের প্রচারে একটি অত্যাবশ্যক বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে। আপনি বিষয়টিকে কিভাবে দেখছেন? আতিক হাসান বলেন, গান ভিডিও নির্ভর হওয়াটা আমাকে কষ্ট দেয়। কারণ এখন ইউটিউবে গান প্রকাশের জোয়ার চলছে। চলছে ভিডিওর জোয়ার। ভিউ গণনা নিয়েও প্রতিযোগিতা হচ্ছে। এটাতো হবার কথা ছিলো না। অনেকে এখন গানের ভিডিওতে সুরসুরি দিয়ে ভিউ বাড়ানোর চেষ্টা করছেন। আবার ব্যায়বহুল মিউজিক ভিডিওর প্রতিযোগিতাও চলছে। আমি এগুলোর একদমই বিপক্ষে। কারণ একজন শিল্পীর উচিত গানের প্রতি মনযোগী হওয়া। সেটার প্রচারে ভিডিও করতে আমার আপত্তি নেই। তবে আগে গানের অডিওর উপর জোর দিতে হবে। তারপর ভিডিও। নতুন গান নিয়ে পরিকল্পনা কি? উত্তরে এ শিল্পী বলেন, আসলে ভালো গানের বিকল্প নেই। তাই আমার প্রধান লক্ষ্য হচ্ছে ভালো মানের গান করা। ইথুন বাবুর কথা ও সুরে নতুন একটি গান করেছি এর মধ্যে। আরও কিছু প্রস্তাব রয়েছে। সেগুলো নিয়ে ভাবছি। তবে শোয়ের ব্যস্ততাটা একটু কমলে নতুন গানে মনযোগ দেবো। আশা করছি এ বছর বেশ কিছু গান শ্রোতাদের উপহার দিতে পারবো। এবার ভিন্ন প্রসঙ্গে আসি। সংসার কেমন চলছে। আতিক হাসান হেসে বলেন, খুব ভালো চলছে। আমার স্ত্রী সোমা আমাকে সব কাজে সহযোগিতা করে। আমার সংগীত জীবনে তার অবদানও অনেক। আমরা আমাদের ছেলে আরাফ বিন আতিক এবং মেয়ে সুহানা আতিককে নিয়ে সুখে আছি। 

Comments