Header Ads

গুজরাট ভোট নিয়ে রাহুল কংগ্রেসের নৈতিক জয় হয়েছে

কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী বলেছেন, গুজরাটের ভোটে কংগ্রেসের নৈতিক জয় হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সংসদ ভবনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এই মন্তব্য করার পাশাপাশি তিনি এ কথাও বলেন, গুজরাটের ফল আসলে বিজেপির কাছে মোক্ষম এক ধাক্কা।

গুজরাট বিধানসভার ভোটের ফল গত সোমবার প্রকাশিত হয়েছে। ১৮২ আসনের বিধানসভায় ৯৯ আসন পেয়ে বিজেপি ষষ্ঠবারের মতো সরকার গড়ার সুযোগ পেয়েছে। হাড্ডাহাড্ডি লড়াই শেষে কংগ্রেস পায় ৮০ আসন। ফল প্রকাশের পর সোমবারই রাহুল জয়ী বিজেপিকে অভিনন্দন জানিয়েছিলেন। অভিনন্দন জানিয়েছিলেন কংগ্রেসের কর্মী ও সমর্থকদেরও।
মঙ্গলবার কিন্তু রাহুল প্রবল সমালোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির। ফল প্রকাশের পর সোমবার কংগ্রেসের সমালোচনা করে মোদি বলেছিলেন, বিজেপি বিকাশ ও উন্নয়নকে ভোটের ইস্যু করেছিল, কংগ্রেস ভোটে লড়তে এসেছিল জাতপাতকে আঁকড়ে। এই উল্লেখ করে রাহুল বলেন, ‘মোদিজির দাবি, গুজরাটের জয়ের অর্থ নোট বাতিল ও জিএসটি সিদ্ধান্তে জনতার অনুমোদন। মোদিজি এখন উন্নয়নের কথা বলছেন। অথচ নির্বাচনী প্রচারে তিনি একটিবারের জন্যও উন্নয়নের কথা বলেননি। জিএসটির কথা বলেননি। তোলেননি নোট বাতিলের প্রসঙ্গ।’ এর পরই রাহুল বলেন, ‘এই ভোট মোদিজির বিশ্বাসযোগ্যতার ওপরই প্রশ্ন তুলে দিয়েছে। সত্যি বলতে কি, মোদিজির বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে সমস্যাও রয়েছে।’

রাহুল বলেন, বিজেপি হয়তো জিতেছে। কিন্তু জনতা প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়নের মডেল প্রত্যাখ্যান করেছে। ওই উন্নয়ন ভালো মার্কেটিং হয়তো। তবে তা ভাসা ভাসা। গভীরতা নেই। রাহুল বলেন, নির্বাচনে কংগ্রেস জেতেনি। কিন্তু ভোটের ফল কংগ্রেসের পক্ষে ভালো।

রাহুলের কথার জবাব দিতে বিজেপি দেরি করেনি। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাবরেকর বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মোকাবিলা কীভাবে করবেন, সে বিষয়ে রাহুল গান্ধীদের কোনো ধারণাই ছিল না। গুজরাটে তাঁরা বলে বেরিয়েছেন, বিকাশ পাগল হয়ে গেছে। বিকাশ কী, তার মডেলটাই-বা কী রকম, সেই ধারণাই কংগ্রেসের নেই।’

মহারাষ্ট্রে বিজেপির শরিক দল শিব সেনার সঙ্গে তাদের সম্পর্ক বেশ খারাপ। শিব সেনা গুজরাট ভোট প্রসঙ্গে বলেছে, মোদির রাজ্যে জয় আসলে কংগ্রেসেরই হয়েছে। বিজেপির আরেক শরিক অকালি দলের নেতা নরেশ গুজরাল বলেছেন, বিজেপির ঔদ্ধত্যই খারাপ ফলের কারণ।

গুজরাটের ভোটের জন্য ভারতীয় সংসদের শীতকালীন অধিবেশন পিছিয়ে দেওয়া হয়েছিল। গত শুক্রবার থেকে সেই অধিবেশন শুরু হয়েছে। কিন্তু মঙ্গলবারও তার কাজ ব্যাহত হয়। গুজরাটে প্রচারের সময় সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী মোদি যে মন্তব্য করেছিলেন, কংগ্রেস তার প্রতিবাদ জানিয়ে আসছে। তাদের দাবি, ওই অশালীন মন্তব্যের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ক্ষমা চাইতে হবে।

বিজেপির গুজরাট ও হিমাচল প্রদেশ জয় অবশ্য দেশের শেয়ারবাজারকে চাঙা করে তুলেছে। অর্থনীতিবিদদের ধারণা, এই জয়ের পর মোদি অর্থনৈতিক সংস্কারের বকেয়া কাজগুলো সেরে ফেলতে আরও উৎসাহিত হবেন। ভোটের ফল প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গে ডলারের তুলনায় রুপির দামও বেড়ে গেছে।

No comments

Powered by Blogger.