এখনো গ্রেপ্তার হননি ইয়াহিয়া



সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে ঘরে ঢুকে ছুরিকাঘাতে স্কুলছাত্রী হুমায়রা আক্তার মুন্নীকে (১৬) হত্যার তিন দিনেও বখাটে ইয়াহিয়া সরদারকে (২২) গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। এই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে এবং দ্রুত বখাটে ইয়াহিয়া সরদারকে গ্রেপ্তারের দাবিতে গতকাল মঙ্গলবার সুনামগঞ্জ পৌর শহরে মানববন্ধন করেছে প্রথম আলো বন্ধুসভা ও বাংলাদেশ মানবাধিকার কাউন্সিল নামের একটি সংগঠন।

গত শনিবার রাত সাড়ে সাতটার দিকে দিরাই পৌর শহরের মাদানী মহল্লায় ঘরে ঢুকে হুমায়রাকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করেন বখাটে ইয়াহিয়া। এ সময় হুমায়রা ও তার ছোট ভাই ওই কক্ষে পড়াশোনা করছিল। পড়ার টেবিলেই হুমায়রাকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যান ইয়াহিয়া। পরে হাসপাতালে নেওয়ার পথে হুমায়রা মারা যায়। প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় ক্ষুব্ধ হয়ে ইয়াহিয়া এই কাজ করেন। দিরাই বালিকা উচ্চবিদ্যালয় থেকে এবারের এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার কথা ছিল হুমায়রার। প্রাথমিক সমাপনী ও জেএসসি পরীক্ষায় সে জিপিএ-৫ পেয়েছে।

এদিকে ঘটনার পর সোমবার বিকেলে দিরাই থানায় মুন্নীর মা রাহেলা বেগম বাদী হয়ে একটি মামলা করেন। মামলায় উপজেলার করিমপুর ইউনিয়নের সাকিতপুর গ্রামের মো. ইয়াহিয়া সরদার ও দিরাই পৌর শহরের মাদানী মহল্লা এলাকার বাসিন্দা দিরাই ডিগ্রি কলেজের স্নাতক প্রথম বর্ষের ছাত্র তানভীর আহমদকে (২২) আসামি করা হয়। এরপর বিকেলেই পুলিশ ইয়াহিয়ার বন্ধু তানভীরকে গ্রেপ্তার করে। কিন্তু গতকাল বিকেল পর্যন্ত ইয়াহিয়াকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

এ ব্যাপারে সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খান গতকাল বিকেলে প্রথম আলোকে বলেন, ইয়াহিয়াকে ধরতে পুলিশের কয়েকটি দল জেলা ও জেলার বাইরে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালাচ্ছে। র‍্যাবও ইয়াহিয়াকে গ্রেপ্তারে অভিযান চালাচ্ছে বলে জানিয়েছেন র‍্যাবের সুনামগঞ্জ কোম্পানির (সিপিসি-৩) অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কমান্ডার ফয়সাল আহমদ।

ইয়াহিয়া সরদার
সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে ঘরে ঢুকে ছুরিকাঘাতে স্কুলছাত্রী হুমায়রা আক্তার মুন্নীকে (১৬) হত্যার তিন দিনেও বখাটে ইয়াহিয়া সরদারকে (২২) গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। এই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে এবং দ্রুত বখাটে ইয়াহিয়া সরদারকে গ্রেপ্তারের দাবিতে গতকাল মঙ্গলবার সুনামগঞ্জ পৌর শহরে মানববন্ধন করেছে প্রথম আলো বন্ধুসভা ও বাংলাদেশ মানবাধিকার কাউন্সিল নামের একটি সংগঠন।

গত শনিবার রাত সাড়ে সাতটার দিকে দিরাই পৌর শহরের মাদানী মহল্লায় ঘরে ঢুকে হুমায়রাকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করেন বখাটে ইয়াহিয়া। এ সময় হুমায়রা ও তার ছোট ভাই ওই কক্ষে পড়াশোনা করছিল। পড়ার টেবিলেই হুমায়রাকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যান ইয়াহিয়া। পরে হাসপাতালে নেওয়ার পথে হুমায়রা মারা যায়। প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় ক্ষুব্ধ হয়ে ইয়াহিয়া এই কাজ করেন। দিরাই বালিকা উচ্চবিদ্যালয় থেকে এবারের এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার কথা ছিল হুমায়রার। প্রাথমিক সমাপনী ও জেএসসি পরীক্ষায় সে জিপিএ-৫ পেয়েছে।

এদিকে ঘটনার পর সোমবার বিকেলে দিরাই থানায় মুন্নীর মা রাহেলা বেগম বাদী হয়ে একটি মামলা করেন। মামলায় উপজেলার করিমপুর ইউনিয়নের সাকিতপুর গ্রামের মো. ইয়াহিয়া সরদার ও দিরাই পৌর শহরের মাদানী মহল্লা এলাকার বাসিন্দা দিরাই ডিগ্রি কলেজের স্নাতক প্রথম বর্ষের ছাত্র তানভীর আহমদকে (২২) আসামি করা হয়। এরপর বিকেলেই পুলিশ ইয়াহিয়ার বন্ধু তানভীরকে গ্রেপ্তার করে। কিন্তু গতকাল বিকেল পর্যন্ত ইয়াহিয়াকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

এ ব্যাপারে সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খান গতকাল বিকেলে প্রথম আলোকে বলেন, ইয়াহিয়াকে ধরতে পুলিশের কয়েকটি দল জেলা ও জেলার বাইরে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালাচ্ছে। র‍্যাবও ইয়াহিয়াকে গ্রেপ্তারে অভিযান চালাচ্ছে বলে জানিয়েছেন র‍্যাবের সুনামগঞ্জ কোম্পানির (সিপিসি-৩) অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কমান্ডার ফয়সাল আহমদ।


নিহত হুমায়রা আক্তার মুন্নী।
এদিকে গতকাল বেলা ১১টায় সুনামগঞ্জ পৌর শহরের আলফাত স্কয়ারে প্রথম আলো বন্ধুসভার উদ্যোগে মানববন্ধন হয়। বন্ধুসভার জেলা সভাপতি মো. রাজু আহমেদের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য দেন সুনামগঞ্জের নারীনেত্রী শীলা রায়, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা বজলুল মজিদ চৌধুরী, জেলা খেলাঘর আসরের সভাপতি বিজন সেন রায়, সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নিগার সুলতানা, জেলা যুব ইউনিয়নের সভাপতি এনাম আহমেদ, সমকাল সুহৃদ সমাবেশের জেলা সভাপতি এ এস এম মাহবুবুল হাছান তালুকদার, জেলা উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সহসভাপতি দ্বিপাল ভট্টাচার্য প্রমুখ।

এর আগে সকাল ১০টায় বাংলাদেশ মানবাধিকার কাউন্সিল সুনামগঞ্জ জেলা শাখার উদ্যোগে মানববন্ধন হয় শহরের আদালত প্রাঙ্গণে। এখানে বক্তব্য দেন সুনামগঞ্জের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী হোসেন তওফিক চৌধুরী, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি সৈয়দ শায়েখ আহমদ, সাধারণ সম্পাদক মো. আবদুল হক, আয়োজক সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আইনজীবী মো. আবদুল জলিল প্রমুখ। এ ছাড়া বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ সুনামগঞ্জ জেলা শাখার নেতারা গতকাল দুপুরে দিরাই থানায় গিয়ে বিষয়টি নিয়ে পুলিশের সঙ্গে কথা বলেন এবং ইয়াহিয়াকে দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবি জানান।

Comments