রিয়ালকে আরও পেছনে ফেলল বার্সা

গোললাইন-বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না বার্সেলোনার। কিছুদিন আগেই লিওনেল মেসির গোল বাতিল হওয়ায় জয়বঞ্চিত হয়েছিল বার্সা, কাল গোলবঞ্চিত হলেন লুইস সুয়ারেজ। তবে উরুগুইয়ান স্ট্রাইকারের গোল বাতিল হলেও এবার জয় নিয়েই ফিরেছে ভালভার্দের দল। জয়টা বেশ বড় ব্যবধানেই। ঘরের মাঠে দেপোর্তিভো লা করুনিয়ার বিপক্ষে ৪-০ গোলে জিতে লা লিগার পয়েন্ট তালিকায় আরও জাঁকিয়ে বসলেন মেসিরা। আগামী সপ্তাহে অনুষ্ঠেয় এল ক্লাসিকোয় ১১ পয়েন্ট পিছিয়ে থেকে বার্সেলোনার মুখোমুখি হবে রিয়াল।

কোনো সন্দেহ নেই, ২০১৭-তে রাজত্ব করেছে জিনেদিন জিদানের রিয়াল মাদ্রিদ। লা লিগা, চ্যাম্পিয়নস লিগ মিলিয়ে এক মৌসুমে পাঁচটি শিরোপা জিতেছেন তিনি, তাঁর দল রিয়াল। কিন্তু এই মৌসুমে গল্পটা কেমন যেন উল্টে যাচ্ছে। কালকের জয়ের ফলে ১৬ ম্যাচে ৪২ পয়েন্ট নিয়ে লা লিগার এক নম্বর দল এখন বার্সেলোনা। ১৩ জয় আর ৩টি ড্র, লিগে এখনো অজেয় তারা। ৬ পয়েন্ট পিছিয়ে দুই নম্বরে ডিয়েগো সিমিওনের অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। এই মৌসুমে নতুন করে জেগে ওঠা ভ্যালেন্সিয়া ৮ পয়েন্ট দূরত্বে রয়েছে তিন নম্বরে। আর এক ম্যাচ হাতে রেখে ১১ পয়েন্ট দূরত্বে গতবারের চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদ।
ন্যু ক্যাম্পে দেপোর্তিভোকে নিয়ে ছেলেখেলা করেছেন মেসি-সুয়ারেজরা। ৪-০ গোলের ব্যবধানটা এমনিতেই বড়, তবে কাল বার্সা আরও বড় ব্যবধানে জিততে পারত। মেসির পেনাল্টি বাঁচিয়ে দিয়েছেন গোলরক্ষক রুবেন মার্টিনেজ। আসলে ভাগ্য সহায় হয়নি মেসির; আর্জেন্টাইন তারকার গোটা তিনেক শট পোস্টে লেগে ফিরেছে। এ নিয়ে চলতি মৌসুমে তাঁর ১৪টি শট পোস্টে লেগে ফিরল। তবে প্রথম গোলের উৎসে তিনিই ছিলেন। ২৯ মিনিটে ইনিয়েস্তার ভাসিয়ে দেওয়া বল ফাঁকায় দাঁড়ানো সুয়ারেজের দিকে ঠেলে দেন মেসি, যেন বড়দিনের উপহার। সুয়ারেজের প্রথম গোলে এগিয়ে যায় কাতালানরা। বিরতির মিনিট পাঁচেক আগে আবারও মেসির শট। পোস্টে লেগে ফিরে আসা বলে গোল করতে ভুল করেননি পাউলিনহো; ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় বার্সা। অথচ ৪৪ মিনিটে সুয়ারেজের দর্শনীয় শট লাইনের ভেতর থেকে ফেরালেও গোলের বাঁশি বাজাননি লাইনসম্যান।
দ্বিতীয়ার্ধে যেন প্রথম দুই গোলের ‘পুনঃপ্রচার’ দেখল দর্শকেরা। ৪৭ মিনিটে মেসির ক্রস, দেপোর্তিভো ডিফেন্ডারদের সামনে বাঁক খেয়ে দূরের পোস্টে সুরাজের পায়ে এসে জমল। এবারে বল জালে জড়িয়েই গোল আদায় করলেন উরুগুয়ের ফরোয়ার্ড। ম্যাচের শেষ গোলটি পেলেন পাউলিনহো, ঠিক প্রথম গোলের মতোই। মেসির জায়গায় জর্ডি আলবার শট পোস্টে লেগেছিল, পার্থক্য বলতে এটুকুই। বার্সার আক্রমণ আটকাতে গোটা ম্যাচেই দারুণ খেলেছেন মার্টিনেজ। কিন্তু এমন দুর্দান্ত ছন্দে থাকা দলকে আটকানো যে অনেক কঠিন, সেটি আবারও প্রমাণ হয়ে গেল।

Comments